ঢাকা ০৯:৩২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৯ নভেম্বর ২০২৩, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
গোয়াইনঘাটে অবৈধ মেটারনিটি ক্বিনিকে ক্লিনার ও আয়া দিয়ে চলের রমরমা ব্যবসা, দিনে ২ শিশুর মৃত্যু। বড় ইনিংসের ‘সুযোগ মিস করায় হতাশ’ মাহমুদুল ভোটের মাধ্যমে শেখ হাসিনাকে রক্ষা করে দেশকে এগিয়ে নিতে হবে -এমপি বাহার শোডাউন করে নির্বাচনী এলাকায় এমপি প্রাণ গোপাল সংগ্রহ করলেন মনোনয়নপত্র আরমান হোসেন তালুকদার তাপস এর কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের মনোনয়ন সংগ্রহ আন্তর্জাতিক সম্মাননায় ভূষিত হল চট্টগ্রামের তরুণ সংগঠক “দূর্বার তারুণ্যের” আবু আবিদ শেরপুর জেলা পরিষদ থেকে অটোরিক্সা বিতরণ টানা ৭ম বারের মতো মাদারীপুর-১-(শিবচর) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন জনপ্রিয় সংসদ সদস্য নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটন। তারেকের নেতৃত্ব না মানা নেতারা নির্বাচন করবেন: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কুমিল্লা দেবিদ্বারে অ্যাম্বুলেন্সের ধাক্কায় যুবক নিহত

জলে-ডাঙায় শিকারে পটু বিপন্ন ‘ডাহুক’

মৌলভীবাজার: নির্জন এক জলাভূমি। পাশ দিয়ে বয়ে গেছে পাহাড়ি পথ।

ছোট নয়, আবার তেমন বড়ও নয়। চা বাগানের শ্রমিক লোকজন খুব একটা আসেন না এদিকে। যারা আসেন তারা নিজেদের গৃহপালিত গরুর জন্য ঘাস আর জ্বালানি কাঠ সংগ্রহ করতেই আসেন।
লোকজন তেমনভাবে না আসার ফলে ওই স্থানটি হয়ে রয়েছে দারুণ প্রকৃতিময়! কেননা, প্রকৃতি এখানে মানুষ শাসিত নয়। ও নিজের মতোই বিরাজমান। প্রকৃতির উপাদানগুলো তাতে খুব ভালোভাবেই নিজেদের মতো পরিচালিত হচ্ছে এখানে।

ডাহুক নিজের মতো চরে বেড়াচ্ছে। নানান প্রজাতির বক মাছ ধরার জন্য দীর্ঘ সময় অতিবাহিত করছে। মায়া হরিণ ওই জলাভূমি সংলগ্ন কচিকোমল ঘাসগুলো খাবারের জন্য মাঝে মাঝে চলে আসে। এখানে নানান জীববৈচিত্র্য ভর করে আছে। নিচে জলাভূমি এবং পাশেই পাহাড় থাকায় কখনো ভয় পেলে কিংবা নিজেদের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হলে দ্রুত তারা পাহাড়ে লুকিয়ে পড়ে।

এখানের স্থায়ী বাসিন্দা ‘ডাহুক’। এ জলচর পাখিটির পোশাকি নাম ‘ধলাবুক-ডাহুক’। কেউ কেউ ‘সাদা বুক-ডাহুক’ও বলে থাকেন। গলা থেকে পেট পর্যন্ত সাদা রঙের দৃষ্টি আকর্ষণ করা উপস্থিতি আছে বলেই ওর নামে সঙ্গে ধলা বা সাদা শব্দটা ব্যবহৃত।

 

এদের ইংরেজি নামেও ওই বুকে সাদা রঙের কথাই বলা আছে। White-breasted Waterhen ‘হোয়াইট-ব্রেস্টেড ওয়াটারহেন’ এ ইংরেজি শব্দটি ওই রঙেরই প্রতিনিধিত্ব করছে। পাখি রাজ্যে বিভিন্ন প্রজাতিদের নামকরণ তাদের ভিন্ন ভিন্ন শারীরিক রঙের বৈচিত্র্যে হয়ে থাকে। ডাহুকের বেলাতেও এর পরিবর্তন হয়নি। এর বৈজ্ঞানিক নাম Amaurornis phoenicurus.

ডাহুক সাধারণত দিবাচর। খুব সকালে এবং শেষ বিকেলে খাবার সন্ধানে বেশি ব্যস্ত হতে দেখা যায়। এরা খুবই লাজুক এবং ভীতু প্রকৃতির পাখি। জলজ উদ্ভিদে ঢাকা জলাভূমিতে বা জলাভূমি সংলগ্ন তৃণভূমিতে তাদের উপস্থিতি খুঁজে পাওয়া যায়। জলে এবং ডাঙা ওরা সমানভাবে শিকার ধরতে পারদর্শী। বিল, ডোবা, হাওর, নদী, ঝিল বা নানান জলাশয়ের পাশে ওরা সাধারণত একা আবার কখনো জোড়ায় বিচরণ করে বেড়ায়। সারা দেশের জলাভূমিতে তাদের দেখা যায়।

হঠাৎ করে অপ্রত্যাশিত মানুষ বা অন্য কোনো প্রাণীর আগমনে ভয় পেয়ে ওরা দ্রুত জলাভূমির ভেতরে গিয়ে নিজে আত্মগোপন করে। পরিস্থিতি শান্ত হলে বা কারো উপস্থিতি আর দেখা না গেল পুনরায় সেই স্থানে বের হয় খাবারের সন্ধানে। এদের খাদ্য তালিকায় রয়েছে পোকা, লার্ভা, ছোট শামুক, কেঁচো, জোঁক, জলজ উদ্ভিদের কচি পাতা প্রভৃতি। এরা হেঁটে হেঁটে খাবার খায়।

দৈহিক বৈশিষ্ট্য অনুসারে ডাহুক চেনার সহজ উপায়- এদের গাল, গলা, বুক এবং পেট সাদা। দেহের উপরিভাগ কালচে-ধূসর। তলপেট এবং লেজের নিচ লালচে রঙে। এছাড়াও চঞ্চুর রং সবুজ এবং এর গোড়ার অগ্রভাগ লাল। এদের শারীরিক দৈর্ঘ্য ৩২ সেন্টিমিটার।

আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংঘ (আইইউসিএন), বাংলাদেশ এর ‘লাল-তালিকায়’ ডাহুক প্রজাতিকে ‘এলসি’ অর্থাৎ ‘ন্যূনতম বিপদগ্রস্ত’ প্রাণী হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইন ২০১২ এর ধারা মোতাবেক ডাহুক পাখিকে ধরা, পালন করা, মারা কিংবা এর মাংস খাওয়া আইন দণ্ডনীয় অপরাধ। এ ধরনের অপরাধে হতে পারে জেল-জরিমানা।

 

Tag :

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ও অন্যান্য তথ্য সঞ্চয় করে রাখুন

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

গোয়াইনঘাটে অবৈধ মেটারনিটি ক্বিনিকে ক্লিনার ও আয়া দিয়ে চলের রমরমা ব্যবসা, দিনে ২ শিশুর মৃত্যু।

জলে-ডাঙায় শিকারে পটু বিপন্ন ‘ডাহুক’

আপডেট সময় ০৫:৪৯:১৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৫ নভেম্বর ২০২৩

মৌলভীবাজার: নির্জন এক জলাভূমি। পাশ দিয়ে বয়ে গেছে পাহাড়ি পথ।

ছোট নয়, আবার তেমন বড়ও নয়। চা বাগানের শ্রমিক লোকজন খুব একটা আসেন না এদিকে। যারা আসেন তারা নিজেদের গৃহপালিত গরুর জন্য ঘাস আর জ্বালানি কাঠ সংগ্রহ করতেই আসেন।
লোকজন তেমনভাবে না আসার ফলে ওই স্থানটি হয়ে রয়েছে দারুণ প্রকৃতিময়! কেননা, প্রকৃতি এখানে মানুষ শাসিত নয়। ও নিজের মতোই বিরাজমান। প্রকৃতির উপাদানগুলো তাতে খুব ভালোভাবেই নিজেদের মতো পরিচালিত হচ্ছে এখানে।

ডাহুক নিজের মতো চরে বেড়াচ্ছে। নানান প্রজাতির বক মাছ ধরার জন্য দীর্ঘ সময় অতিবাহিত করছে। মায়া হরিণ ওই জলাভূমি সংলগ্ন কচিকোমল ঘাসগুলো খাবারের জন্য মাঝে মাঝে চলে আসে। এখানে নানান জীববৈচিত্র্য ভর করে আছে। নিচে জলাভূমি এবং পাশেই পাহাড় থাকায় কখনো ভয় পেলে কিংবা নিজেদের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হলে দ্রুত তারা পাহাড়ে লুকিয়ে পড়ে।

এখানের স্থায়ী বাসিন্দা ‘ডাহুক’। এ জলচর পাখিটির পোশাকি নাম ‘ধলাবুক-ডাহুক’। কেউ কেউ ‘সাদা বুক-ডাহুক’ও বলে থাকেন। গলা থেকে পেট পর্যন্ত সাদা রঙের দৃষ্টি আকর্ষণ করা উপস্থিতি আছে বলেই ওর নামে সঙ্গে ধলা বা সাদা শব্দটা ব্যবহৃত।

 

এদের ইংরেজি নামেও ওই বুকে সাদা রঙের কথাই বলা আছে। White-breasted Waterhen ‘হোয়াইট-ব্রেস্টেড ওয়াটারহেন’ এ ইংরেজি শব্দটি ওই রঙেরই প্রতিনিধিত্ব করছে। পাখি রাজ্যে বিভিন্ন প্রজাতিদের নামকরণ তাদের ভিন্ন ভিন্ন শারীরিক রঙের বৈচিত্র্যে হয়ে থাকে। ডাহুকের বেলাতেও এর পরিবর্তন হয়নি। এর বৈজ্ঞানিক নাম Amaurornis phoenicurus.

ডাহুক সাধারণত দিবাচর। খুব সকালে এবং শেষ বিকেলে খাবার সন্ধানে বেশি ব্যস্ত হতে দেখা যায়। এরা খুবই লাজুক এবং ভীতু প্রকৃতির পাখি। জলজ উদ্ভিদে ঢাকা জলাভূমিতে বা জলাভূমি সংলগ্ন তৃণভূমিতে তাদের উপস্থিতি খুঁজে পাওয়া যায়। জলে এবং ডাঙা ওরা সমানভাবে শিকার ধরতে পারদর্শী। বিল, ডোবা, হাওর, নদী, ঝিল বা নানান জলাশয়ের পাশে ওরা সাধারণত একা আবার কখনো জোড়ায় বিচরণ করে বেড়ায়। সারা দেশের জলাভূমিতে তাদের দেখা যায়।

হঠাৎ করে অপ্রত্যাশিত মানুষ বা অন্য কোনো প্রাণীর আগমনে ভয় পেয়ে ওরা দ্রুত জলাভূমির ভেতরে গিয়ে নিজে আত্মগোপন করে। পরিস্থিতি শান্ত হলে বা কারো উপস্থিতি আর দেখা না গেল পুনরায় সেই স্থানে বের হয় খাবারের সন্ধানে। এদের খাদ্য তালিকায় রয়েছে পোকা, লার্ভা, ছোট শামুক, কেঁচো, জোঁক, জলজ উদ্ভিদের কচি পাতা প্রভৃতি। এরা হেঁটে হেঁটে খাবার খায়।

দৈহিক বৈশিষ্ট্য অনুসারে ডাহুক চেনার সহজ উপায়- এদের গাল, গলা, বুক এবং পেট সাদা। দেহের উপরিভাগ কালচে-ধূসর। তলপেট এবং লেজের নিচ লালচে রঙে। এছাড়াও চঞ্চুর রং সবুজ এবং এর গোড়ার অগ্রভাগ লাল। এদের শারীরিক দৈর্ঘ্য ৩২ সেন্টিমিটার।

আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংঘ (আইইউসিএন), বাংলাদেশ এর ‘লাল-তালিকায়’ ডাহুক প্রজাতিকে ‘এলসি’ অর্থাৎ ‘ন্যূনতম বিপদগ্রস্ত’ প্রাণী হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইন ২০১২ এর ধারা মোতাবেক ডাহুক পাখিকে ধরা, পালন করা, মারা কিংবা এর মাংস খাওয়া আইন দণ্ডনীয় অপরাধ। এ ধরনের অপরাধে হতে পারে জেল-জরিমানা।