ঢাকা ১০:১৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঘুষ দুর্নীতি আর দলিল বাণিজ্যের মহাপুরুষ সাবরেজিস্ট্রার জাহাঙ্গির আলম

গাজীপুরের সদর সাব রেজিস্ট্রার অফিস এখন পরিণত হয়েছে সাব রেজিস্ট্রার মো. জাহাঙ্গির আলম এর রমরমা ঘুষ দুর্নীতি ও দলিল বাণিজ্যের অভয়ারণ্যে। এখানে ঘুষ ছাড়া মেলেনা সেবা, নড়েনা ফাইল। নির্ধারিত সরকারি ফি দিয়ে দলিল সম্পাদন করতে গেলে ঘুরতে হয় মাসের পর মাস। রহস্যজনক কারণে জেলা রেজিস্ট্রার সাবেকুন নাহারও রয়েছেন নিশ্চুপ।
এখন সাব রেজিস্ট্রার জাহাঙ্গির আলমের নির্দেশ অনুযায়ী চলে সকল কার্যক্রম । রাজধানী বাড্ডার আদলে তাঁর এই নগ্ন ঘুষ দুর্নীতি আর দলিল বাণিজ্যের লুটপাটে সার্বিক সহায়তা করে আসছে দলিল লেখক সমিতির কতিপয় নেতা ও তাঁর অধীন কথিত সাব রেজিস্ট্রার সহকারী।
অভিযোগ উঠেছে সাব রেজিস্ট্রার প্রতি কর্মদিবসে দলিল প্রতি হাতিয়ে নিচ্ছেন ১২ থেকে ২৫ হাজার টাকা।
এছাড়া নাল জমিকে ডোবা নালা দেখিয়ে হায়ার ভ্যালু আর আন্ডার ভ্যালুর মারপ্যাঁচে ফেলে হাতিয়ে নিচ্ছেন কড়কড়ে বান্ডিল।
এছাড়া কম লেখাপড়া জানা এবং সহজসরল মানুষকে জমিতে সমস্যা আছে মর্মে ভুলভাল বুঝিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছেন লক্ষ লক্ষ টাকা।
এতে করে সাবরেজিস্টার নামে বেনামে অঢেল অবৈধ সম্পদের পাহাড় গড়ে তুললেও সরকার হারাচ্ছে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব।
তাই দুর্নীতিবাজ এই সাবরেজিস্ট্রার মো. জাহাঙ্গির আলম কে অপসারণ ও তাঁর অবৈধ সম্পদের খোঁজ তল্লাশি নিতে আইজিআর উম্মে কুলসুম মহোদয় সহ দুদকের কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন সচেতন মহল।

Tag :

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ও অন্যান্য তথ্য সঞ্চয় করে রাখুন

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

ঘুষ দুর্নীতি আর দলিল বাণিজ্যের মহাপুরুষ সাবরেজিস্ট্রার জাহাঙ্গির আলম

আপডেট সময় ০৩:০৪:০২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪

গাজীপুরের সদর সাব রেজিস্ট্রার অফিস এখন পরিণত হয়েছে সাব রেজিস্ট্রার মো. জাহাঙ্গির আলম এর রমরমা ঘুষ দুর্নীতি ও দলিল বাণিজ্যের অভয়ারণ্যে। এখানে ঘুষ ছাড়া মেলেনা সেবা, নড়েনা ফাইল। নির্ধারিত সরকারি ফি দিয়ে দলিল সম্পাদন করতে গেলে ঘুরতে হয় মাসের পর মাস। রহস্যজনক কারণে জেলা রেজিস্ট্রার সাবেকুন নাহারও রয়েছেন নিশ্চুপ।
এখন সাব রেজিস্ট্রার জাহাঙ্গির আলমের নির্দেশ অনুযায়ী চলে সকল কার্যক্রম । রাজধানী বাড্ডার আদলে তাঁর এই নগ্ন ঘুষ দুর্নীতি আর দলিল বাণিজ্যের লুটপাটে সার্বিক সহায়তা করে আসছে দলিল লেখক সমিতির কতিপয় নেতা ও তাঁর অধীন কথিত সাব রেজিস্ট্রার সহকারী।
অভিযোগ উঠেছে সাব রেজিস্ট্রার প্রতি কর্মদিবসে দলিল প্রতি হাতিয়ে নিচ্ছেন ১২ থেকে ২৫ হাজার টাকা।
এছাড়া নাল জমিকে ডোবা নালা দেখিয়ে হায়ার ভ্যালু আর আন্ডার ভ্যালুর মারপ্যাঁচে ফেলে হাতিয়ে নিচ্ছেন কড়কড়ে বান্ডিল।
এছাড়া কম লেখাপড়া জানা এবং সহজসরল মানুষকে জমিতে সমস্যা আছে মর্মে ভুলভাল বুঝিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছেন লক্ষ লক্ষ টাকা।
এতে করে সাবরেজিস্টার নামে বেনামে অঢেল অবৈধ সম্পদের পাহাড় গড়ে তুললেও সরকার হারাচ্ছে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব।
তাই দুর্নীতিবাজ এই সাবরেজিস্ট্রার মো. জাহাঙ্গির আলম কে অপসারণ ও তাঁর অবৈধ সম্পদের খোঁজ তল্লাশি নিতে আইজিআর উম্মে কুলসুম মহোদয় সহ দুদকের কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন সচেতন মহল।