ঢাকা ০৫:১৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::

পবিত্র আশুরা কবে, জানা যাবে সন্ধ্যায়

ঢাকা: ১৪৪৫ হিজরি সনের পবিত্র মুহাররম মাসের চাঁদ দেখা এবং পবিত্র আশুরার তারিখ নির্ধারণের লক্ষ্যে আজ বৈঠকে বসতে যাচ্ছে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি।

মঙ্গলবার (১৮ জুলাই) সন্ধ্যায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বায়তুল মোকাররম সভাকক্ষে বৈঠকটি বসবে। এতে সভাপতিত্ব করবেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান।

এদিকে দেশের আকাশে কোথাও পবিত্র মুহাররম মাসের চাঁদ দেখা গেলে টেলিফোন ও ফ্যাক্স নম্বরে অথবা সংশ্লিষ্ট জেলার জেলা প্রশাসক অথবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানাতে অনুরোধ করেছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন।

টেলিফোন নম্বর: ৯৫৫৯৪৯৩, ৯৫৫৫৯৪৭, ৯৫৫৬৪০৭ এবং ৯৫৫৮৩৩৭। ফ্যাক্স নম্বর: ৯৫৬৩৩৯৭ এবং ৯৫৫৫৯৫১।

ইসলামি বর্ষপঞ্জি তথা হিজরি সালে যে চারটি মাস মুসলমানদের দৃষ্টিতে সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ তার মধ্যে মুহররম অন্যতম। ১০ মুহররমকে বিশেষ মর্যাদার দৃষ্টিতে দেখে সেদিন নানা কর্মসূচি পালন করে মুসলিম উম্মাহ। নফল রোজাসহ নানা এবাদত-বন্দেগি করেন মুসলমানরা।

Tag :

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ও অন্যান্য তথ্য সঞ্চয় করে রাখুন

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

পুলিশে আরও রদবদল, এক অতিরিক্ত আইজিপি ও ৯ ডিআইজি বদলি

পবিত্র আশুরা কবে, জানা যাবে সন্ধ্যায়

আপডেট সময় ১১:০১:২১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুলাই ২০২৩

ঢাকা: ১৪৪৫ হিজরি সনের পবিত্র মুহাররম মাসের চাঁদ দেখা এবং পবিত্র আশুরার তারিখ নির্ধারণের লক্ষ্যে আজ বৈঠকে বসতে যাচ্ছে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি।

মঙ্গলবার (১৮ জুলাই) সন্ধ্যায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বায়তুল মোকাররম সভাকক্ষে বৈঠকটি বসবে। এতে সভাপতিত্ব করবেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান।

এদিকে দেশের আকাশে কোথাও পবিত্র মুহাররম মাসের চাঁদ দেখা গেলে টেলিফোন ও ফ্যাক্স নম্বরে অথবা সংশ্লিষ্ট জেলার জেলা প্রশাসক অথবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানাতে অনুরোধ করেছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন।

টেলিফোন নম্বর: ৯৫৫৯৪৯৩, ৯৫৫৫৯৪৭, ৯৫৫৬৪০৭ এবং ৯৫৫৮৩৩৭। ফ্যাক্স নম্বর: ৯৫৬৩৩৯৭ এবং ৯৫৫৫৯৫১।

ইসলামি বর্ষপঞ্জি তথা হিজরি সালে যে চারটি মাস মুসলমানদের দৃষ্টিতে সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ তার মধ্যে মুহররম অন্যতম। ১০ মুহররমকে বিশেষ মর্যাদার দৃষ্টিতে দেখে সেদিন নানা কর্মসূচি পালন করে মুসলিম উম্মাহ। নফল রোজাসহ নানা এবাদত-বন্দেগি করেন মুসলমানরা।