ঢাকা ১১:৫২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
মিন্টুকে গ্রেফতারের পর কোনো চাপ আছে কিনা, জানালেন ডিবির হারুন সরকার পরিকল্পিতভাবে খালেদা জিয়াকে চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত রেখেছে আটক আ.লীগ নেতাদের বহিষ্কার দাবি ডরিনের শিশুকন্যাকে বাঁচাতে পারলেও চোখের সামনে মারা গেছেন স্ত্রী ময়মনসিংহে নারীকে ধর্ষণের পর হত্যা আসামী গ্রেপ্তার; রহস্য উদঘাটনে কোতোয়ালী মডেল থানা পুলিশ কাউখালীতে আওয়ামী লীগের ৭৫ তম বর্ষপূর্তি উদযাপন উপলক্ষে আলোচনা সভা। ফরিদগঞ্জে আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত বার্ষিক কর্ম সম্পাদন চুক্তি(APA) ২০২৪-২০২৫ স্বাক্ষর অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত সেনাপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব নিলেন জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান নিহত ৯ বরযাত্রীর ৭ জনই একই পরিবারের

সোনায় অযৌক্তিক ভ্যাটে বিদেশমুখী ক্রেতা

রিপুনুল হাসান: পুত্র-সন্তানের বিয়ের সময় উপহার দেওয়ার জন্য ডায়মন্ড ও গোল্ডের অর্নামেন্ট কেনার জন্য প্রতি বছর বাংলাদেশের বিপুল সংখ্যক বিত্তবান ও সম্পদশালী ভারতে যান। সেখান থেকে নতুন নতুন ডিজাইনের পাশাপাশি সাশ্রয়ী দামে সব গহনা কিনে আনেন। শুধু ভারতেই যান না। বাংলাদেশিরা সোনার গহনা কিনতে দুবাই, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া যান।

আর প্রবাসীরা যে দেশে থাকেন সেখান থেকে দেশে ফেরার সময় সোনার সোনার গহনা নিয়ে আসেন। প্রতি বছর সোনার গহনা রফতানি করে বিপুল অংকের বৈদেশিক মুদ্রা আয় করে ভারত। তারপরও তারা দেশের ভোক্তার প্রতি বাড়তি গুরুত্ব দিয়ে থাকেন। কোন ভাবেই ভারতীয় ক্রেতারা সোনার গহনা ও ডায়মন্ড কিনতে বিদেশ না যায়।

জুয়েলারী ব্যবসার ক্ষেত্রে সোনা, সোনার অলংকার, রূপা বা রূপার অলংকার বিক্রির ক্ষেত্রে আরোপিত ভ্যাট হার ৩ শতাংশ। ভারতের সোনার বাজার এবং অর্থনীতির তুলনায় আমাদের দেশে বিক্রি ও ক্রেতার পরিমাণ বেশি না। তারপরও আমাদের ভ্যাটের হার ৫ শতাংশ। ক্রেতারা বলছেন, ৫ শতাংশ ভ্যাট অযৌক্তিক। প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে তুলনা করলে এটা আমাদের জন্য বেশি।

ভোক্তাদের বিদেশমুখী বন্ধ করতে হলে প্রতিযোগিতামুলক ভ্যাটের হার নির্ধারণ করতে হবে। প্রতিবেশি দেশটির এত বড় বাজার হওয়ার পর ক্রেতাদের জন্য ভ্যাট মাত্র ৩ শতাংশ। বিশ্ববাজারে বাংলাদেশকে প্রতিযোগিতায় সক্ষম করতে জুয়েলারি খাতে আরোপিত শুল্ককর ও ভ্যাট হার কমানো এবং আর্থিক প্রণোদনা প্রদান করতে হবে। এতে যেমন সরকারের বৈদেশিক আয় আসবে। তেমনি বাড়বে রাজস্ব আয়। বিপুল পরিমানে বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের আরেকটি খাত তৈরি হবে। বর্তমানে জুয়েলারী ব্যবসার ক্ষেত্রে সোনা, সোনার অলংকার, রূপা বা রূপার অলংকার বিক্রির ক্ষেত্রে আরোপিত ভ্যাট হার ৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৩ শতাংশ করা হোক।

বর্তমানে মূল্যস্ফীতি এবং ডলারের বিনিময় মূল্যের কারণে ১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম বা প্রতি এক ভরি ২২ ক্যারেট সোনার মূল্য ৯৯ হাজার ১৪৪ টাকা। এরসঙ্গে নূন্যতম মজুরি ৩ হাজার ৪৯৯ টাকা। তারসঙ্গে নির্ধারিত ৫ শতাংশ হারে বা ৫ হাজার ১৩২ টাকা ভ্যাট যুক্ত হলে, মোট মূল্য হয় ১ লাখ ৭ হাজার ৭৭৫ টাকা। বাংলাদেশে প্রতি ভরিতে ভ্যাট দিতে হয় ৫ হাজার ১৩২ টাকা। অন্যদিকে ভারতে সমপরিমান সোনার অলঙ্কার কিনতে ৩ শতাংশ হারে বা ২ হাজার ৭৯১ টাকা ভ্যাট দিতে হয়। যার প্রভাব স্বর্ণালংকার ক্রয় ও বিক্রয়ের ক্ষেত্রে সুস্পষ্ট বিদ্যমান। অথচ বাংলাদেশের অলংকার শিল্পের অপার সম্ভাবনা আছে। ভ্যাট আহরণে আগামী দিনে সরকারের একটি বড় খাত হতে পারে জুয়েলারী শিল্প।

এক্ষেত্রে ক্রেতাদের কাছে সহনীয় আকারে ভ্যাট নির্ধারণ করা জরুরি। বাজুস মনে করে সোনা একটি মূল্যবান ও ¯পর্শকাতর ধাতু হওয়ায় মোট বিক্রয়ের উপর ভ্যাট হার ৫ শতাংশের পরিবর্তে ৩ শতাংশে নামিয়ে আনা দরকার। এতে সরকারের রাজস্ব আয়ের পরিমান আরও বাড়বে।

ভ্যাট হার নির্ধারণের ক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে- বাংলাদেশের ক্রেতারা যেন বিদেশ ভ্রমণে গিয়ে অলংকার ক্রয়ে নিরুৎসাহিত হয়। এখানে উল্লেখ্য যে, বিভিন্ন সময়ে উচ্চবিত্তদের একটা বড় অংশই বিদেশে গিয়ে অলংকার ক্রয় করে থাকেন। যার অন্যতম কারণ আন্তর্জাতিক বাজারের সাথে আমাদের স্থানীয় বাজারের সাথে দামের পার্থক্য। যার কারণে যাদের সামর্থ্য থাকে একসাথে বেশী পরিমাণে সোনা ক্রয় করার, তারা বিদেশ ভ্রমণে গিয়ে বা আত্মীয় স্বজনের মাধ্যমে ব্যাগেজ রুলের অপব্যবহার করে দেশে সোনা আনছেন। এতে একদিকে যেমন দেশের অর্থ বিদেশে চলে যাচ্ছে, অন্যদিকে সরকার প্রত্যাশিত রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। আবার দেশে যারা কেনাকাটা করেন অধিকাংশ ক্ষেত্রে উচ্চ করহারের কারণে ভ্যাট প্রদানে অনীহা প্রকাশ করে থাকেন। এতে ব্যবসায়ীরা বিপাকে পড়েন। আবার জুয়েলারি পণ্য রফতানি সম্ভব হচ্ছে না।

সরকারের প্রাথমিক হিসাবে বাংলাদেশের সোনার বার্ষিক চাহিদা প্রায় ৪০ টন। তবে প্রকৃত চাহিদা নিরুপণে সরকারের সমীক্ষা প্রয়োজন। বৈধভাবে সোনার চাহিদা পূরণ করার ক্ষেত্রে বড় বাঁধা কাঁচামালের উচ্চ মূল্য, অতিরিক্ত উৎপাদন ব্যয়, শিল্প সংশ্লিষ্ট যন্ত্রপাতির উচ্চ আমদানি শুল্ক। বর্তমানে জুয়েলারি শিল্পের প্রায় সকল ধরণের পণ্য ও যন্ত্রপাতির আমদানি শুল্ক ৩০ থেকে ৬০ শতাংশ। যা স্থানীয় অন্যান্য শিল্পে আরোপিত শুল্কের চেয়ে অনেক বেশি। এতে বিনিয়োগ বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। পাশাপাশি ৫ শতাংশ হারে উচ্চ ভ্যাট হার ও অতিরিক্ত উৎপাদন খরচের কারণে ভোক্তা পর্যায়ে আন্তর্জাতিক বাজারের চেয়ে দামের পার্থক্য হচ্ছে। এতে ক্রেতা হারাচ্ছেন জুয়েলারি ব্যবসায়ীরা। আর সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন ছোট ছোট জুয়েলারী ব্যবসায়ী।

বাংলাদেশের মহান স্থাপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা নির্মাণে ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ২০৪১ সফল বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বাজুসের প্রেসিডেন্ট জনাব সায়েম সোবহান আনভীরের নেতৃত্বে আমরা বদ্ধ পরিকর। আগামী দিনে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে জাগরণ তুলবে চায় জুয়েলারি শিল্প। বর্তমানে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ্যভাবে জুয়েলারি শিল্পে আনুমানিক ৪৪ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান রয়েছে। আগামীতে এই শিল্পে এক কোটি মানুষের কর্মসংস্থান সম্ভব। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে জুয়েলারি শিল্পে ভ্যালু এডিশন করে সোনার অলঙ্কার রফতানি সম্ভব। দুবাই যেমন সোনার ব্যবসার কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে, তেমনি বাংলাদেশেও এই সম্ভাবনা রয়েছে। সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন ছিলো জাতির পিতার। এই স্বপ্ন বাস্তবায়নে জুয়েলারি শিল্পে ৩ শতাংশ ভ্যাট ও করমুক্ত সুবিধা চাই। সত্যিকারের সোনার বাংলাদেশ গড়তে জুয়েলারি শিল্পে সকল সমস্যা সমাধানে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চাই।

Tag :

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ও অন্যান্য তথ্য সঞ্চয় করে রাখুন

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

মিন্টুকে গ্রেফতারের পর কোনো চাপ আছে কিনা, জানালেন ডিবির হারুন

সোনায় অযৌক্তিক ভ্যাটে বিদেশমুখী ক্রেতা

আপডেট সময় ০৬:৩১:০৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২ জুন ২০২৩

রিপুনুল হাসান: পুত্র-সন্তানের বিয়ের সময় উপহার দেওয়ার জন্য ডায়মন্ড ও গোল্ডের অর্নামেন্ট কেনার জন্য প্রতি বছর বাংলাদেশের বিপুল সংখ্যক বিত্তবান ও সম্পদশালী ভারতে যান। সেখান থেকে নতুন নতুন ডিজাইনের পাশাপাশি সাশ্রয়ী দামে সব গহনা কিনে আনেন। শুধু ভারতেই যান না। বাংলাদেশিরা সোনার গহনা কিনতে দুবাই, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া যান।

আর প্রবাসীরা যে দেশে থাকেন সেখান থেকে দেশে ফেরার সময় সোনার সোনার গহনা নিয়ে আসেন। প্রতি বছর সোনার গহনা রফতানি করে বিপুল অংকের বৈদেশিক মুদ্রা আয় করে ভারত। তারপরও তারা দেশের ভোক্তার প্রতি বাড়তি গুরুত্ব দিয়ে থাকেন। কোন ভাবেই ভারতীয় ক্রেতারা সোনার গহনা ও ডায়মন্ড কিনতে বিদেশ না যায়।

জুয়েলারী ব্যবসার ক্ষেত্রে সোনা, সোনার অলংকার, রূপা বা রূপার অলংকার বিক্রির ক্ষেত্রে আরোপিত ভ্যাট হার ৩ শতাংশ। ভারতের সোনার বাজার এবং অর্থনীতির তুলনায় আমাদের দেশে বিক্রি ও ক্রেতার পরিমাণ বেশি না। তারপরও আমাদের ভ্যাটের হার ৫ শতাংশ। ক্রেতারা বলছেন, ৫ শতাংশ ভ্যাট অযৌক্তিক। প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে তুলনা করলে এটা আমাদের জন্য বেশি।

ভোক্তাদের বিদেশমুখী বন্ধ করতে হলে প্রতিযোগিতামুলক ভ্যাটের হার নির্ধারণ করতে হবে। প্রতিবেশি দেশটির এত বড় বাজার হওয়ার পর ক্রেতাদের জন্য ভ্যাট মাত্র ৩ শতাংশ। বিশ্ববাজারে বাংলাদেশকে প্রতিযোগিতায় সক্ষম করতে জুয়েলারি খাতে আরোপিত শুল্ককর ও ভ্যাট হার কমানো এবং আর্থিক প্রণোদনা প্রদান করতে হবে। এতে যেমন সরকারের বৈদেশিক আয় আসবে। তেমনি বাড়বে রাজস্ব আয়। বিপুল পরিমানে বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের আরেকটি খাত তৈরি হবে। বর্তমানে জুয়েলারী ব্যবসার ক্ষেত্রে সোনা, সোনার অলংকার, রূপা বা রূপার অলংকার বিক্রির ক্ষেত্রে আরোপিত ভ্যাট হার ৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৩ শতাংশ করা হোক।

বর্তমানে মূল্যস্ফীতি এবং ডলারের বিনিময় মূল্যের কারণে ১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম বা প্রতি এক ভরি ২২ ক্যারেট সোনার মূল্য ৯৯ হাজার ১৪৪ টাকা। এরসঙ্গে নূন্যতম মজুরি ৩ হাজার ৪৯৯ টাকা। তারসঙ্গে নির্ধারিত ৫ শতাংশ হারে বা ৫ হাজার ১৩২ টাকা ভ্যাট যুক্ত হলে, মোট মূল্য হয় ১ লাখ ৭ হাজার ৭৭৫ টাকা। বাংলাদেশে প্রতি ভরিতে ভ্যাট দিতে হয় ৫ হাজার ১৩২ টাকা। অন্যদিকে ভারতে সমপরিমান সোনার অলঙ্কার কিনতে ৩ শতাংশ হারে বা ২ হাজার ৭৯১ টাকা ভ্যাট দিতে হয়। যার প্রভাব স্বর্ণালংকার ক্রয় ও বিক্রয়ের ক্ষেত্রে সুস্পষ্ট বিদ্যমান। অথচ বাংলাদেশের অলংকার শিল্পের অপার সম্ভাবনা আছে। ভ্যাট আহরণে আগামী দিনে সরকারের একটি বড় খাত হতে পারে জুয়েলারী শিল্প।

এক্ষেত্রে ক্রেতাদের কাছে সহনীয় আকারে ভ্যাট নির্ধারণ করা জরুরি। বাজুস মনে করে সোনা একটি মূল্যবান ও ¯পর্শকাতর ধাতু হওয়ায় মোট বিক্রয়ের উপর ভ্যাট হার ৫ শতাংশের পরিবর্তে ৩ শতাংশে নামিয়ে আনা দরকার। এতে সরকারের রাজস্ব আয়ের পরিমান আরও বাড়বে।

ভ্যাট হার নির্ধারণের ক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে- বাংলাদেশের ক্রেতারা যেন বিদেশ ভ্রমণে গিয়ে অলংকার ক্রয়ে নিরুৎসাহিত হয়। এখানে উল্লেখ্য যে, বিভিন্ন সময়ে উচ্চবিত্তদের একটা বড় অংশই বিদেশে গিয়ে অলংকার ক্রয় করে থাকেন। যার অন্যতম কারণ আন্তর্জাতিক বাজারের সাথে আমাদের স্থানীয় বাজারের সাথে দামের পার্থক্য। যার কারণে যাদের সামর্থ্য থাকে একসাথে বেশী পরিমাণে সোনা ক্রয় করার, তারা বিদেশ ভ্রমণে গিয়ে বা আত্মীয় স্বজনের মাধ্যমে ব্যাগেজ রুলের অপব্যবহার করে দেশে সোনা আনছেন। এতে একদিকে যেমন দেশের অর্থ বিদেশে চলে যাচ্ছে, অন্যদিকে সরকার প্রত্যাশিত রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। আবার দেশে যারা কেনাকাটা করেন অধিকাংশ ক্ষেত্রে উচ্চ করহারের কারণে ভ্যাট প্রদানে অনীহা প্রকাশ করে থাকেন। এতে ব্যবসায়ীরা বিপাকে পড়েন। আবার জুয়েলারি পণ্য রফতানি সম্ভব হচ্ছে না।

সরকারের প্রাথমিক হিসাবে বাংলাদেশের সোনার বার্ষিক চাহিদা প্রায় ৪০ টন। তবে প্রকৃত চাহিদা নিরুপণে সরকারের সমীক্ষা প্রয়োজন। বৈধভাবে সোনার চাহিদা পূরণ করার ক্ষেত্রে বড় বাঁধা কাঁচামালের উচ্চ মূল্য, অতিরিক্ত উৎপাদন ব্যয়, শিল্প সংশ্লিষ্ট যন্ত্রপাতির উচ্চ আমদানি শুল্ক। বর্তমানে জুয়েলারি শিল্পের প্রায় সকল ধরণের পণ্য ও যন্ত্রপাতির আমদানি শুল্ক ৩০ থেকে ৬০ শতাংশ। যা স্থানীয় অন্যান্য শিল্পে আরোপিত শুল্কের চেয়ে অনেক বেশি। এতে বিনিয়োগ বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। পাশাপাশি ৫ শতাংশ হারে উচ্চ ভ্যাট হার ও অতিরিক্ত উৎপাদন খরচের কারণে ভোক্তা পর্যায়ে আন্তর্জাতিক বাজারের চেয়ে দামের পার্থক্য হচ্ছে। এতে ক্রেতা হারাচ্ছেন জুয়েলারি ব্যবসায়ীরা। আর সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন ছোট ছোট জুয়েলারী ব্যবসায়ী।

বাংলাদেশের মহান স্থাপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা নির্মাণে ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ২০৪১ সফল বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বাজুসের প্রেসিডেন্ট জনাব সায়েম সোবহান আনভীরের নেতৃত্বে আমরা বদ্ধ পরিকর। আগামী দিনে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে জাগরণ তুলবে চায় জুয়েলারি শিল্প। বর্তমানে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ্যভাবে জুয়েলারি শিল্পে আনুমানিক ৪৪ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান রয়েছে। আগামীতে এই শিল্পে এক কোটি মানুষের কর্মসংস্থান সম্ভব। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে জুয়েলারি শিল্পে ভ্যালু এডিশন করে সোনার অলঙ্কার রফতানি সম্ভব। দুবাই যেমন সোনার ব্যবসার কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে, তেমনি বাংলাদেশেও এই সম্ভাবনা রয়েছে। সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন ছিলো জাতির পিতার। এই স্বপ্ন বাস্তবায়নে জুয়েলারি শিল্পে ৩ শতাংশ ভ্যাট ও করমুক্ত সুবিধা চাই। সত্যিকারের সোনার বাংলাদেশ গড়তে জুয়েলারি শিল্পে সকল সমস্যা সমাধানে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চাই।