বাহরাইনে বাংলাদেশ দূতাবাসে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত

দৈনিক আমাদের মাতৃভূমি
২২ ফেব্রুয়ারী ২০২২, ০১:০৭ অপরাহ্ন
Link Copied!

অনলাইন ডেস্কঃ


বাহরাইনে বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়েছে। 

সোমবার স্থানীয় সময় সকাল ৯টায় দূতাবাস প্রাঙ্গণে বাহরাইনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ড. মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে দিনব্যাপী কর্মসূচির সূচনা করেন।

এরপর, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং ভাষা শহীদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্র মন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত বাণী পাঠ, উন্মুক্ত আলোচনা এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের উপর নির্মিত একটি তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। 

রাষ্ট্রদূত ড. মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম তাঁর বক্তব্যে ভাষা আন্দোলনে এবং আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে বাংলা ভাষার মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অসামান্য অবদানের কথা তুলে ধরেন। ১৯৪৭ সালের সেপ্টেম্বরে ঢাকায় অনুষ্ঠিত পূর্ব পাকিস্তানের গণতান্ত্রিক যুবলীগের কর্মী সম্মেলনে সেদিনের ছাত্রনেতা শেখ মুজিবুর রহমান ভাষা সম্পর্কিত প্রস্তাব উত্থাপন করে বলেন, “বাংলা ভাষাকে পূর্ব পাকিস্তানের লিখার বাহন ও আইন আদালতের ভাষা করা হউক। সমগ্র পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা কি হইবে তৎসম্পর্কে আলাপ-আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণের ভার জনসাধারণের উপর ছাড়িয়া দেওয়া হউক এবং জনগণের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলিয়া গৃহীত হউক।” এভাবেই ভাষার দাবি প্রথমে উচ্চারিত হয়েছিল। আমাদের স্বাধীনতা লাভের পর ১৯৭২ সালের সংবিধানে বঙ্গবন্ধু বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করেন। পরবর্তীকালে, ১৯৭৫ সালের ১২ই মার্চ রাষ্ট্রপতি থাকাকালীন সময়ে তিনি দাপ্তরিক কাজে বাংলা ভাষা প্রচলনের প্রথম সরকারি নির্দেশ জারি করেন।  
 
দিবসটি উপলক্ষ্যে ‘মহান শহীদ দিবস ও ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ বিষয়ে শিশু-কিশোরদের জন্য চিত্রাংকন ও রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। রাষ্ট্রদূত ইসলাম চিত্রাংকন ও রচনা প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। পরিশেষে ভাষা শহীদদের পাশাপাশি বাঙালির স্বাধীনতা ও স্বাধিকার আন্দোলনের সকল পর্যায়ে ঐতিহাসিক ভূমিকা পালনকারী সকল শহিদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। বাহরাইনস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের কর্মকর্তাবৃন্দ, কর্মচারীগণ এবং প্রবাসী বাংলাদেশীরা এসকল অনুষ্ঠানে যোগ দেন।