ঢাকা ০৭:২৭ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২১ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
সিলেট বিভাগীয় সমাবেশকে সফল করতে গনসংযোগ মতবিনিময় সভা সিংড়ায় হাইটেক পার্ক স্হাপন গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ এ্যাওয়ার্ড পেল বাউয়েটের তামিম ও শাফায়াত হোসেন কুমিল্লা মহাসড়কে ডিএনসিসি’র অভিযানে গাঁজাসহ আটক ২ বিভিন্ন কঠিন মামলার রহস্য উদঘাটনে বিশেষ অবদান রাখায় (মিঠাপুকুর-পীরগঞ্জ) ডি সার্কেলকে সম্মাননা স্মারক প্রদান জুয়া খেলা অবস্থায় ০৬ (ছয়) জন জুয়াড়ি আটক সরকারি ন‍্যাশনাল আইডি সার্ভার হ‍্যাককারি ৩ জন গ্রেফতার তৃতীয় লিঙ্গের মারুফা আক্তার মিতু মিঠাপুকুরে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন  রাজধানীতে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে স্বামী-স্ত্রী নিহত সিংড়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার গাভী পেয়ে ৩৯ টি পরিবার খুশি

ভোলায় অপ-চিকিৎসায় শিশুর মৃত্যু; চিকিৎসকের বিরুদ্ধে মামলা

  • ভোলা প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট সময় ১০:৩৪:৪৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৮ নভেম্বর ২০২২
  • ৫৩৪ বার পড়া হয়েছে

৭ মাসের শিশু সামিয়ার গলায় উঠে একটি বিষফোঁড়া। চিকিৎসার জন্য দাদা আব্দুল সাদেক নাতনি সামিয়াকে নিয়ে ভোলা শহরের বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাচ্ছিলেন। এমন সময় স্থানীয় এক পল্লী চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন তিনি। চিকিৎসক সামিয়ার ফোঁড়া দেখে তা চিকিৎসার মাধ্যমে সারতে পারবেন বলে জানায়।

তাঁর আশ্বাসে শুরু হয় চিকিৎসা। একপর্যায়ে শিশুটির শরীরে পুশ করা হয় তিনটি ইনজেকশন। শরীরে ইনজেকশন পুশ করার পরপরই শিশুটির শরীরে নীল বর্ণ ধারণ করে। তা দেখে তাড়াহুড়ো করে ব্লেড দিয়ে কেটে ফোঁড়ার চিকিৎসা চালান ভোলা সদর উপজেলা রাজাপুর ইউনিয়নের জনতা বাজারের ইসলামিয়া মেডিকেল হলের পল্লী চিকিৎসক মো. হোসেন (৪৬)। চিকিৎসার একপর্যায়ে মারা যায় সামিয়া।

এরপর কৌশলে দোকান থেকে পালিয়ে যায় কথিত ওই চিকিৎসক। শনিবার (৫ নভেম্বর) বিকেলে ভোলা সদর উপজেলা রাজাপুর ইউনিয়নের জনতা বাজার ইসলামিয়া মেডিকেল হলের মধ্যে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর গতকাল রোববার ৬ নভেম্বর বিকেলে কথিত ওই ডাক্তারের বিরুদ্ধে ভোলা সদর মডেল থানায় চিকিৎসায় অবহেলায় মৃত্যু আইনে একটি মামলা দায়ের করেন শিশুটির পিতা আল-আমীন। পুলিশ বলছে, ঘটনাটির সুষ্ঠ তদন্ত চলমান রয়েছে। সামিয়া ওই ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের আল-আমীন ও সোহানা দম্পতির মেয়ে।

শিশুটির দাদা আব্দুল সাদেক মা সোহানা বেগম ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, সামিয়াকে নিয়ে কথিত ওই ডাক্তারের শরণাপন্ন হলে তিনি সামিয়াকে ভোলা না নিয়ে তাঁর কাছে কম খরচে চিকিৎসা করাতে পারবেন বলে আশ্বস্ত করেন। কিন্তু চিকিৎসক পরপর তিনটি ইনজেকশন সামিয়ার শরীরে পুশ করতেই তাঁর পুরো শরীর নীল আকার ধারণ করে। এরপর ব্লেড দিয়ে তাঁর ফোঁড়ার জায়গা কাটা শুরু করলেই শিশুটির মৃত্যু হয়।

ঘটনার পর শিশুটির পরিবারকে তাঁরা মামলা না করার জন্য অনুরোধ জানান। হোসেনের জামাতা একই উপজেলার ২নং পূর্ব ইলিশা ইউনিয়নের রাস্তার মাথা বাজারের আল-কারীম মেডিকেল হলের পল্লী চিকিৎসক তারেকসহ তাঁরা বেশ কয়েকজন সামিয়ার বাবা ও দাদাকে ঘটনাটি টাকার বিনিময়ে সমাধানে যেতে অনুরোধ জানান। ঘটনাটি দামাচাপার বিষয়ে জানতে চাইলে, হোসেনের জামাতা তারেক কৌশলে তাঁর ফার্মেসি বন্ধ করে চলে যান।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ভোলা সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. ইমাম হোসেন জানান, মামলা দায়েরের পর ঘটনাটির তদন্ত শুরু হয়েছে। আজ দুপুরে তিনি হোসেনের ইসলামিয়া মেডিকেল হলে গিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষ করেছেন। ঘটনাটির আরও তদন্ত চলমান রয়েছে। ভোলা সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহীন ফকির জানান, শিশুটির ময়নাতদন্ত শেষে লাশ তাঁর পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনাটির তদন্ত শেষে এ ঘটনায় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Tag :

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published.

আপনার ইমেইল ও অন্যান্য তথ্য সঞ্চয় করে রাখুন

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

সিলেট বিভাগীয় সমাবেশকে সফল করতে গনসংযোগ মতবিনিময় সভা

ভোলায় অপ-চিকিৎসায় শিশুর মৃত্যু; চিকিৎসকের বিরুদ্ধে মামলা

আপডেট সময় ১০:৩৪:৪৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৮ নভেম্বর ২০২২

৭ মাসের শিশু সামিয়ার গলায় উঠে একটি বিষফোঁড়া। চিকিৎসার জন্য দাদা আব্দুল সাদেক নাতনি সামিয়াকে নিয়ে ভোলা শহরের বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাচ্ছিলেন। এমন সময় স্থানীয় এক পল্লী চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন তিনি। চিকিৎসক সামিয়ার ফোঁড়া দেখে তা চিকিৎসার মাধ্যমে সারতে পারবেন বলে জানায়।

তাঁর আশ্বাসে শুরু হয় চিকিৎসা। একপর্যায়ে শিশুটির শরীরে পুশ করা হয় তিনটি ইনজেকশন। শরীরে ইনজেকশন পুশ করার পরপরই শিশুটির শরীরে নীল বর্ণ ধারণ করে। তা দেখে তাড়াহুড়ো করে ব্লেড দিয়ে কেটে ফোঁড়ার চিকিৎসা চালান ভোলা সদর উপজেলা রাজাপুর ইউনিয়নের জনতা বাজারের ইসলামিয়া মেডিকেল হলের পল্লী চিকিৎসক মো. হোসেন (৪৬)। চিকিৎসার একপর্যায়ে মারা যায় সামিয়া।

এরপর কৌশলে দোকান থেকে পালিয়ে যায় কথিত ওই চিকিৎসক। শনিবার (৫ নভেম্বর) বিকেলে ভোলা সদর উপজেলা রাজাপুর ইউনিয়নের জনতা বাজার ইসলামিয়া মেডিকেল হলের মধ্যে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর গতকাল রোববার ৬ নভেম্বর বিকেলে কথিত ওই ডাক্তারের বিরুদ্ধে ভোলা সদর মডেল থানায় চিকিৎসায় অবহেলায় মৃত্যু আইনে একটি মামলা দায়ের করেন শিশুটির পিতা আল-আমীন। পুলিশ বলছে, ঘটনাটির সুষ্ঠ তদন্ত চলমান রয়েছে। সামিয়া ওই ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের আল-আমীন ও সোহানা দম্পতির মেয়ে।

শিশুটির দাদা আব্দুল সাদেক মা সোহানা বেগম ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, সামিয়াকে নিয়ে কথিত ওই ডাক্তারের শরণাপন্ন হলে তিনি সামিয়াকে ভোলা না নিয়ে তাঁর কাছে কম খরচে চিকিৎসা করাতে পারবেন বলে আশ্বস্ত করেন। কিন্তু চিকিৎসক পরপর তিনটি ইনজেকশন সামিয়ার শরীরে পুশ করতেই তাঁর পুরো শরীর নীল আকার ধারণ করে। এরপর ব্লেড দিয়ে তাঁর ফোঁড়ার জায়গা কাটা শুরু করলেই শিশুটির মৃত্যু হয়।

ঘটনার পর শিশুটির পরিবারকে তাঁরা মামলা না করার জন্য অনুরোধ জানান। হোসেনের জামাতা একই উপজেলার ২নং পূর্ব ইলিশা ইউনিয়নের রাস্তার মাথা বাজারের আল-কারীম মেডিকেল হলের পল্লী চিকিৎসক তারেকসহ তাঁরা বেশ কয়েকজন সামিয়ার বাবা ও দাদাকে ঘটনাটি টাকার বিনিময়ে সমাধানে যেতে অনুরোধ জানান। ঘটনাটি দামাচাপার বিষয়ে জানতে চাইলে, হোসেনের জামাতা তারেক কৌশলে তাঁর ফার্মেসি বন্ধ করে চলে যান।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ভোলা সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. ইমাম হোসেন জানান, মামলা দায়েরের পর ঘটনাটির তদন্ত শুরু হয়েছে। আজ দুপুরে তিনি হোসেনের ইসলামিয়া মেডিকেল হলে গিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষ করেছেন। ঘটনাটির আরও তদন্ত চলমান রয়েছে। ভোলা সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহীন ফকির জানান, শিশুটির ময়নাতদন্ত শেষে লাশ তাঁর পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনাটির তদন্ত শেষে এ ঘটনায় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।