ঢাকা ১১:৩০ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইলিশ আসছে শনিবার, বাজারে উচ্ছ্বাস

ইলিশের নিরাপদ প্রজননের লক্ষ্যে ৭ অক্টোবর থেকে শুরু হওয়া ইলিশ ধরা, পরিবহন, ক্রয়-বিক্রয়, মজুত ও বিনিময়ের ওপর ২২ দিনের শেষ হচ্ছে আজ (২৮ অক্টোবর)। ফলে মধ্যরাত থেকেই মাছ ধরা শুরু হবে। শনিবার (২৯ অক্টোবর) সকাল থেকেই বাজারে আসবে ইলিশ মাছ। নতুন মাছ আসার খবরে উচ্ছ্বাস ফিরেছে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের মধ্যে।

শুক্রবার (২৮ অক্টোবর) সকালে রাজধানীর কারওয়ান বাজার ও মধ্য বাড্ডা মাছের বাজার ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।বিক্রেতারা বলছেন, ইলিশ না থাকায় কেজিপ্রতি ৫০ থেকে ১০০ টাকা পর্যন্ত অন্য মাছের দাম বেড়েছে। তবে, বাজারে ইলিশ এলে মাছ বাজারের এই উত্তাপ কমে আসবে বলে প্রত্যাশা তাদের।

কারওয়ান বাজারের মাছ বিক্রেতা মোহাম্মদ লাভলু মিয়া বলেন, শুনেছি কাল (শনিবার) থেকে ইলিশ ধরা যাবে। তাহলে হয়ত কাল থেকেই বাজারে আমরা ইলিশ পাব। ২২ দিন ইলিশ না থাকায় আমরা যারা নিয়মিত ইলিশ বিক্রি করি, তাদের অন্য মাছ বিক্রি করতে হয়েছে। ইলিশ আসার খবরে ভালো লাগছে। তিনি বলেন, মাছের বাজার খুবই চড়া। ইলিশ এলে হয়ত শুরুর দিকে দামটা একটু বেশি থাকবে। তবে অন্য মাছের দাম কমে যাবে।

dhakapost

মধ্যবাড্ডা মাছ বাজারের মাছ বিক্রেতা শাহ আলম বলেন, ইলিশ না থাকায় মূলত সব মাছেরই দাম বেড়েছে। রুই মাছের দাম কেজিতে বেড়েছে ৫০ টাকা। আবার কিছু মাছের দাম কেজিতে ১০০ টাকাও বেড়েছে। দাম কমবে কবে থেকে— জানতে চাইলে তিনি বলেন, সাগরে-নদীতে তো মাছ ধরা যাচ্ছে না। নিষেধাজ্ঞার কারণে জেলেরা জাল ফেলতে পারছে না।

কারওয়ান বাজারে মাছ কিনতে আসা রফিকুল ইসলাম বলেন, বাজারে আসার পর শুনলাম কাল থেকে ইলিশ আসবে। এটা খুব ভালো খবর। এখন তো বাজারে মাছ খুব কম। যে কারণে দামটাও তুলনামূলক বেশি। ইলিশ এলে নিশ্চয়ই অন্য মাছের দামও কমবে।

নিরাপদ প্রজননের লক্ষ্যে গত ৭ অক্টোবর থেকে ২২ দিন সারা দেশে ইলিশ ধরা, পরিবহন, ক্রয়-বিক্রয়, মজুত ও বিনিময় নিষিদ্ধ করা হয়। ২২ দিনের এ নিষেধাজ্ঞা শেষ হবে ২৮ অক্টোবর রাত ১২টায়। গত ১৫ সেপ্টেম্বর মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে এ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।

এর আগে দেশের ইলিশ সম্পদ উন্নয়নে জাটকা সংরক্ষণের জন্য গত ১ মার্চ থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত দুই মাস ছয় জেলার পাঁচটি অভয়াশ্রমে ইলিশসহ সব ধরনের মাছ ধরা নিষিদ্ধ ছিল। নিষেধাজ্ঞার আওতায় বরিশাল, চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর, ভোলা, শরীয়তপুর ও পটুয়াখালী জেলার ইলিশ অভয়াশ্রম সংশ্লিষ্ট নদ-নদীতে ইলিশসহ সব ধরনের মাছ ধরা বন্ধ থাকে।

মৎস্য বিভাগ সূত্র জানায়, ইলিশ সারা বছরই কম বেশি ডিম ছাড়ে। তবে আশ্বিন মাসের অমাবস্যা ও ভরা পূর্ণিমায় ইলিশ প্রচুর ডিম ছাড়ে। প্রজননের এ প্রধান সময় ইলিশ গভীর সাগর থেকে মোহনা ও নদীর মিঠা পানিতে ছুটে আসে।

Tag :

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published.

আপনার ইমেইল ও অন্যান্য তথ্য সঞ্চয় করে রাখুন

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

ইলিশ আসছে শনিবার, বাজারে উচ্ছ্বাস

আপডেট সময় ০২:০৭:১৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৮ অক্টোবর ২০২২

ইলিশের নিরাপদ প্রজননের লক্ষ্যে ৭ অক্টোবর থেকে শুরু হওয়া ইলিশ ধরা, পরিবহন, ক্রয়-বিক্রয়, মজুত ও বিনিময়ের ওপর ২২ দিনের শেষ হচ্ছে আজ (২৮ অক্টোবর)। ফলে মধ্যরাত থেকেই মাছ ধরা শুরু হবে। শনিবার (২৯ অক্টোবর) সকাল থেকেই বাজারে আসবে ইলিশ মাছ। নতুন মাছ আসার খবরে উচ্ছ্বাস ফিরেছে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের মধ্যে।

শুক্রবার (২৮ অক্টোবর) সকালে রাজধানীর কারওয়ান বাজার ও মধ্য বাড্ডা মাছের বাজার ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।বিক্রেতারা বলছেন, ইলিশ না থাকায় কেজিপ্রতি ৫০ থেকে ১০০ টাকা পর্যন্ত অন্য মাছের দাম বেড়েছে। তবে, বাজারে ইলিশ এলে মাছ বাজারের এই উত্তাপ কমে আসবে বলে প্রত্যাশা তাদের।

কারওয়ান বাজারের মাছ বিক্রেতা মোহাম্মদ লাভলু মিয়া বলেন, শুনেছি কাল (শনিবার) থেকে ইলিশ ধরা যাবে। তাহলে হয়ত কাল থেকেই বাজারে আমরা ইলিশ পাব। ২২ দিন ইলিশ না থাকায় আমরা যারা নিয়মিত ইলিশ বিক্রি করি, তাদের অন্য মাছ বিক্রি করতে হয়েছে। ইলিশ আসার খবরে ভালো লাগছে। তিনি বলেন, মাছের বাজার খুবই চড়া। ইলিশ এলে হয়ত শুরুর দিকে দামটা একটু বেশি থাকবে। তবে অন্য মাছের দাম কমে যাবে।

dhakapost

মধ্যবাড্ডা মাছ বাজারের মাছ বিক্রেতা শাহ আলম বলেন, ইলিশ না থাকায় মূলত সব মাছেরই দাম বেড়েছে। রুই মাছের দাম কেজিতে বেড়েছে ৫০ টাকা। আবার কিছু মাছের দাম কেজিতে ১০০ টাকাও বেড়েছে। দাম কমবে কবে থেকে— জানতে চাইলে তিনি বলেন, সাগরে-নদীতে তো মাছ ধরা যাচ্ছে না। নিষেধাজ্ঞার কারণে জেলেরা জাল ফেলতে পারছে না।

কারওয়ান বাজারে মাছ কিনতে আসা রফিকুল ইসলাম বলেন, বাজারে আসার পর শুনলাম কাল থেকে ইলিশ আসবে। এটা খুব ভালো খবর। এখন তো বাজারে মাছ খুব কম। যে কারণে দামটাও তুলনামূলক বেশি। ইলিশ এলে নিশ্চয়ই অন্য মাছের দামও কমবে।

নিরাপদ প্রজননের লক্ষ্যে গত ৭ অক্টোবর থেকে ২২ দিন সারা দেশে ইলিশ ধরা, পরিবহন, ক্রয়-বিক্রয়, মজুত ও বিনিময় নিষিদ্ধ করা হয়। ২২ দিনের এ নিষেধাজ্ঞা শেষ হবে ২৮ অক্টোবর রাত ১২টায়। গত ১৫ সেপ্টেম্বর মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে এ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।

এর আগে দেশের ইলিশ সম্পদ উন্নয়নে জাটকা সংরক্ষণের জন্য গত ১ মার্চ থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত দুই মাস ছয় জেলার পাঁচটি অভয়াশ্রমে ইলিশসহ সব ধরনের মাছ ধরা নিষিদ্ধ ছিল। নিষেধাজ্ঞার আওতায় বরিশাল, চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর, ভোলা, শরীয়তপুর ও পটুয়াখালী জেলার ইলিশ অভয়াশ্রম সংশ্লিষ্ট নদ-নদীতে ইলিশসহ সব ধরনের মাছ ধরা বন্ধ থাকে।

মৎস্য বিভাগ সূত্র জানায়, ইলিশ সারা বছরই কম বেশি ডিম ছাড়ে। তবে আশ্বিন মাসের অমাবস্যা ও ভরা পূর্ণিমায় ইলিশ প্রচুর ডিম ছাড়ে। প্রজননের এ প্রধান সময় ইলিশ গভীর সাগর থেকে মোহনা ও নদীর মিঠা পানিতে ছুটে আসে।