ঢাকা ১১:০৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ১৫ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
আল্লামা আব্দুচ্ছালাম শাহ (রহঃ) স্মৃতি সংসদের কার্যনির্বাহী পরিষদ গঠিত যুক্তরাষ্ট্র হবিগঞ্জ জেলা সমিতি পক্ষ হতে ০৩ টি পরিবারকে স্বাবলম্বি করার ক্ষুদ্র প্রচেষ্ঠা বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে ৩ দিন যাবত অবস্থান করছেন প্রেমিকা আ.লীগ নয়, বিএনপির প্রধান শত্রু জনগণ : শেখ পরশ শেখ হাসিনার উন্নয়ন বার্তা পৌঁছে দিতে হবে : ফারুক খান সংবিধানের আলোকে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করেছেন শেখ হাসিনা বিএনপির গণতন্ত্র মানে খালেদা-তারেকের শাসন ফেরত আনা : জয় দেশকে শিশুদের নিরাপদ আবাসভূমি করতে সরকার অঙ্গীকারাবদ্ধ স্মার্ট বাংলাদেশে সব নাগরিক সুবিধা থাকবে : স্থানীয় সরকার মন্ত্রী সভাপতি রহমত, সম্পাদক কবির রামগঞ্জ প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন

রোহিঙ্গা ইস্যুতে সহায়তা করবে চীন

মিয়ানমারের অভ্যন্তরীণ গোলযোগের কারণে বাংলাদেশ সীমান্তে সৃষ্ট অস্থিরতার বিষয়ে চীনের রাষ্ট্রদূতকে অবহিত করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। বৈঠক শেষে ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্র সচিব মো. খোরশেদ আলম সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে চীন সহায়তা করবে। ‘তারা আমাদের আশ্বস্ত করেছে’ বলেও জানান তিনি। এর আগে গত সপ্তাহে ঢাকায় কর্মরত বিদেশি রাষ্ট্রদূতদের সীমান্ত পরিস্থিতি নিয়ে ব্রিফিংয়ের আয়োজন করেছিল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। কিন্তু ওই ব্রিফিংয়ে চীনের প্রতিনিধি না আসায় সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) চীনের রাষ্ট্রদূতকে পৃথকভাবে ডেকে পাঠানো হয়।

বৈঠক শেষে ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্র সচিব মো. খোরশেদ আলম জানান, গত ব্রিফিংয়ে চীনের প্রতিনিধি অনুপস্থিত ছিলেন। সে কারণে আজ তাকে অবহিত করা হয়েছে। আগের ব্রিফিংয়ে চীনের প্রতিনিধি কেন আসেননি জানতে চাইলে খোরশেদ আলম বলেন, ‘তাদের অবশ্যই কারণ ছিল। আমরা বন্ধুপ্রতিম দেশের কাছে এর ব্যাখ্যা চাই না।’ পারস্পরিক স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ার সঙ্গে চীন আগে থেকে ছিল এবং এটি যাতে আরও ত্বরান্বিত হয়, সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।’

বেইজিং বাংলাদেশকে সহায়তা করবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘তারা আমাদের জানিয়েছেন সহায়তা করবে। তারা আমাদের আশ্বস্ত করেছেন, যত দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া যায়, সে বিষয়ে তারা সহায়তা করবে।’ সরকারের মূল লক্ষ্য হচ্ছে রোহিঙ্গাদের দ্রুত প্রত্যাবাসন শুরু করা জানিয়ে খোরশেদ আলম বলেন, ‘আগে চীন একটি উদ্যোগ নিয়েছিল। আমরা তাদের বলেছি—তারা যেন আবার উদ্যোগ নেয়।’

রাখাইনে যুদ্ধ হচ্ছে, কিন্তু রোহিঙ্গাদের যে জায়গায় প্রত্যাবাসন করা হবে, সেখানে যুদ্ধ নেই বলে তিনি জানান। এদিকে চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিং সাংবাদিকদের বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন ও আন্তর্জাতিক সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা হয়েছে।’ সীমান্ত পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘মিয়ানমারে সহিংসতার কারণে বাংলাদেশে সৃষ্ট সমস্যার বিষয়টি বলা হয়েছে এবং এটি অত্যন্ত দুঃখজনক ঘটনা।’

Tag :

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published.

আপনার ইমেইল ও অন্যান্য তথ্য সঞ্চয় করে রাখুন

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

আল্লামা আব্দুচ্ছালাম শাহ (রহঃ) স্মৃতি সংসদের কার্যনির্বাহী পরিষদ গঠিত

রোহিঙ্গা ইস্যুতে সহায়তা করবে চীন

আপডেট সময় ০১:১৮:৩৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২

মিয়ানমারের অভ্যন্তরীণ গোলযোগের কারণে বাংলাদেশ সীমান্তে সৃষ্ট অস্থিরতার বিষয়ে চীনের রাষ্ট্রদূতকে অবহিত করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। বৈঠক শেষে ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্র সচিব মো. খোরশেদ আলম সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে চীন সহায়তা করবে। ‘তারা আমাদের আশ্বস্ত করেছে’ বলেও জানান তিনি। এর আগে গত সপ্তাহে ঢাকায় কর্মরত বিদেশি রাষ্ট্রদূতদের সীমান্ত পরিস্থিতি নিয়ে ব্রিফিংয়ের আয়োজন করেছিল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। কিন্তু ওই ব্রিফিংয়ে চীনের প্রতিনিধি না আসায় সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) চীনের রাষ্ট্রদূতকে পৃথকভাবে ডেকে পাঠানো হয়।

বৈঠক শেষে ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্র সচিব মো. খোরশেদ আলম জানান, গত ব্রিফিংয়ে চীনের প্রতিনিধি অনুপস্থিত ছিলেন। সে কারণে আজ তাকে অবহিত করা হয়েছে। আগের ব্রিফিংয়ে চীনের প্রতিনিধি কেন আসেননি জানতে চাইলে খোরশেদ আলম বলেন, ‘তাদের অবশ্যই কারণ ছিল। আমরা বন্ধুপ্রতিম দেশের কাছে এর ব্যাখ্যা চাই না।’ পারস্পরিক স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ার সঙ্গে চীন আগে থেকে ছিল এবং এটি যাতে আরও ত্বরান্বিত হয়, সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।’

বেইজিং বাংলাদেশকে সহায়তা করবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘তারা আমাদের জানিয়েছেন সহায়তা করবে। তারা আমাদের আশ্বস্ত করেছেন, যত দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া যায়, সে বিষয়ে তারা সহায়তা করবে।’ সরকারের মূল লক্ষ্য হচ্ছে রোহিঙ্গাদের দ্রুত প্রত্যাবাসন শুরু করা জানিয়ে খোরশেদ আলম বলেন, ‘আগে চীন একটি উদ্যোগ নিয়েছিল। আমরা তাদের বলেছি—তারা যেন আবার উদ্যোগ নেয়।’

রাখাইনে যুদ্ধ হচ্ছে, কিন্তু রোহিঙ্গাদের যে জায়গায় প্রত্যাবাসন করা হবে, সেখানে যুদ্ধ নেই বলে তিনি জানান। এদিকে চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিং সাংবাদিকদের বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন ও আন্তর্জাতিক সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা হয়েছে।’ সীমান্ত পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘মিয়ানমারে সহিংসতার কারণে বাংলাদেশে সৃষ্ট সমস্যার বিষয়টি বলা হয়েছে এবং এটি অত্যন্ত দুঃখজনক ঘটনা।’