ঢাকা ০৬:৪৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২১ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
সিলেট বিভাগীয় সমাবেশকে সফল করতে গনসংযোগ মতবিনিময় সভা সিংড়ায় হাইটেক পার্ক স্হাপন গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ এ্যাওয়ার্ড পেল বাউয়েটের তামিম ও শাফায়াত হোসেন কুমিল্লা মহাসড়কে ডিএনসিসি’র অভিযানে গাঁজাসহ আটক ২ বিভিন্ন কঠিন মামলার রহস্য উদঘাটনে বিশেষ অবদান রাখায় (মিঠাপুকুর-পীরগঞ্জ) ডি সার্কেলকে সম্মাননা স্মারক প্রদান জুয়া খেলা অবস্থায় ০৬ (ছয়) জন জুয়াড়ি আটক সরকারি ন‍্যাশনাল আইডি সার্ভার হ‍্যাককারি ৩ জন গ্রেফতার তৃতীয় লিঙ্গের মারুফা আক্তার মিতু মিঠাপুকুরে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন  রাজধানীতে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে স্বামী-স্ত্রী নিহত সিংড়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার গাভী পেয়ে ৩৯ টি পরিবার খুশি

কুলাউড়ায় গলায় ওড়না পেঁচানো শিশুর লাশ উদ্ধার

  • আসিফ জাহান, ঢাকা
  • আপডেট সময় ১২:৪৪:৫৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২
  • ৭৮৩ বার পড়া হয়েছে

মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার পৃথিমপাশায় ১২ বছরের এক মেয়ের গলায় ওড়না দিয়ে ফাঁস লাগানো এক কিশোরীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার সকাল ১১টায় লাশটি উদ্ধার করা হয়। 

প্রত্যক্ষদর্শী ও কিশোররীর মা-বাবা বলেন, সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখেন মেয়েটি ঘরে নেই। খোঁজাখুজির এক পর্যায়ে তাদের ছোট আরেকটি মেয়ে বাড়ির পাশে গাছ বাগানের এক পাশে লাশ পড়ে থাকতে দেখে সবাইকে খবর দিলে তারা ঘটনাস্থলে ছুটে যান। এসময় তার গলায় ওড়না পেছানো ছিল। ওড়নাটি মেয়ের চাচা নিকুঞ্জ সরকার গলা থেকে খুলেন। এসময় মেয়েটির জিবহায় কামড় দেয়া ও মুখ দিয়ে রক্ত বের হচ্ছিল।

মেয়ের বাবা সুলতানপুর এলাকার সাবেক প্রাইমারী স্কুল প্রধান শিক্ষক কামাল হোসেন চৌধুরীর বাড়ির বাহিরের একটি ঘরে বসবাস করতেন। গরীবলোক হিসেবে তাকে থাকতে দিয়েছিলেন তিনি। দীগেন্দ্র সরকারের বাড়ি হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার ৭নং করগাঁও ইউনিয়নের গুমগুমিয়া গ্রামে। সে পেশায় একজন কুচিয়া মাছ ব্যবসায়ী।

স্থানীয় ইউপি সদস্য ও এলাকাবাসী পুলিশে খবর দিলে পুলিশ এসে ছুরতহাল তৈরী করে লাশ ময়না তদন্তের জন্য মৌলভীবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

স্থাণীয় এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়, মেয়েটির পিতা মাদকাসক্ত। প্রায় সময়ই ছোট ছোট বাচ্ছা ও তার স্ত্রীকে মারধোর করতো। মেয়েটি মৃগী রোগী ছিল বলেও জানা যায়। অনেকে ধারণা করছেন, মেয়েটির বাবা অন্যদের ফাঁসাতে মেয়েটিকে মেরে ফেলতে পারে।

মেয়েটির বাবা দীগেন্দ্র সরকার মেয়েটি মৃগী রোগী জানিয়ে বলেন, সকালে তার মেয়েকে ঘরে না পেয়ে খুঁজতে থাকলে বাহিরে মেয়ের লাশ পান তিনি। তিনি বলেন, এর আগেও তার মেয়ের সাথে ধর্ষণ চেষ্ঠার একটি ঘটনা ঘটেছিল, সেটা স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল মতিন তার ও তার স্ত্রীকে ভয় দেখিয়ে ১০ হাজার টাকা দিয়ে শেষ করেছেন। তিনি বলেন, প্রায় সময় একই গ্রামের কাজল নামে এক লোক তার মেয়েকে দেখলেই উত্যক্ত ও হুমকি দিত। তিনি আরও বলেন, কাজল তার মেয়েকে দেখলেই মেরে ফেলবে বলতো। এছাড়াও কয়েকজন এমন হুমকি দিত। তিনি ও তার স্ত্রী কাজলকেই দায়ী করছেন। একই কথা পুলিশের কাছেও বলেন তারা।

এবিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল মতিন তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তিনি ধর্ষণ চেষ্ঠার বিষয়ে কিছু করেননি বা হুমকি-ধামকি দেননি। তিনি এ ঘটনার বিষয়ে বলেন, তিনি ঘটনাস্থলে এসে এসআই হারুনকে খবর দিলে পুলিশ এসে ছুরতহাল তৈরী করে লাশ নিয়ে গেছে।

কুলাউড়া থানার সহকারী পুলিশ পরিদর্শক(এসআই) হারুন উর রশিদ জানান, ছুরতহাল রিপোর্টে গায়ে কোনও আঘাতের চিহৃ পাওয়া যায়নি। তবে মেয়েটি গলায় ফাঁস লাগানো ছিল এবং উপুড় হয়ে থাকায় নাকে-মুখে রক্ত বেরিয়েছে। তিনি বলেন, এবিষয়ে অনেক সন্ধেহ দেখা দিয়েছে, নিজ পরিবারের লোকজন জড়িত থাকতে পারে। তবে তিনি বলেন, ময়না তদন্তের পর প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে। এ বিষয়ে আইনি প্রক্রিয়া অব্যাহত আছে বলেও জানান তিনি।

পর্ব-১

Tag :

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published.

আপনার ইমেইল ও অন্যান্য তথ্য সঞ্চয় করে রাখুন

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

সিলেট বিভাগীয় সমাবেশকে সফল করতে গনসংযোগ মতবিনিময় সভা

কুলাউড়ায় গলায় ওড়না পেঁচানো শিশুর লাশ উদ্ধার

আপডেট সময় ১২:৪৪:৫৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২

মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার পৃথিমপাশায় ১২ বছরের এক মেয়ের গলায় ওড়না দিয়ে ফাঁস লাগানো এক কিশোরীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার সকাল ১১টায় লাশটি উদ্ধার করা হয়। 

প্রত্যক্ষদর্শী ও কিশোররীর মা-বাবা বলেন, সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখেন মেয়েটি ঘরে নেই। খোঁজাখুজির এক পর্যায়ে তাদের ছোট আরেকটি মেয়ে বাড়ির পাশে গাছ বাগানের এক পাশে লাশ পড়ে থাকতে দেখে সবাইকে খবর দিলে তারা ঘটনাস্থলে ছুটে যান। এসময় তার গলায় ওড়না পেছানো ছিল। ওড়নাটি মেয়ের চাচা নিকুঞ্জ সরকার গলা থেকে খুলেন। এসময় মেয়েটির জিবহায় কামড় দেয়া ও মুখ দিয়ে রক্ত বের হচ্ছিল।

মেয়ের বাবা সুলতানপুর এলাকার সাবেক প্রাইমারী স্কুল প্রধান শিক্ষক কামাল হোসেন চৌধুরীর বাড়ির বাহিরের একটি ঘরে বসবাস করতেন। গরীবলোক হিসেবে তাকে থাকতে দিয়েছিলেন তিনি। দীগেন্দ্র সরকারের বাড়ি হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার ৭নং করগাঁও ইউনিয়নের গুমগুমিয়া গ্রামে। সে পেশায় একজন কুচিয়া মাছ ব্যবসায়ী।

স্থানীয় ইউপি সদস্য ও এলাকাবাসী পুলিশে খবর দিলে পুলিশ এসে ছুরতহাল তৈরী করে লাশ ময়না তদন্তের জন্য মৌলভীবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

স্থাণীয় এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়, মেয়েটির পিতা মাদকাসক্ত। প্রায় সময়ই ছোট ছোট বাচ্ছা ও তার স্ত্রীকে মারধোর করতো। মেয়েটি মৃগী রোগী ছিল বলেও জানা যায়। অনেকে ধারণা করছেন, মেয়েটির বাবা অন্যদের ফাঁসাতে মেয়েটিকে মেরে ফেলতে পারে।

মেয়েটির বাবা দীগেন্দ্র সরকার মেয়েটি মৃগী রোগী জানিয়ে বলেন, সকালে তার মেয়েকে ঘরে না পেয়ে খুঁজতে থাকলে বাহিরে মেয়ের লাশ পান তিনি। তিনি বলেন, এর আগেও তার মেয়ের সাথে ধর্ষণ চেষ্ঠার একটি ঘটনা ঘটেছিল, সেটা স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল মতিন তার ও তার স্ত্রীকে ভয় দেখিয়ে ১০ হাজার টাকা দিয়ে শেষ করেছেন। তিনি বলেন, প্রায় সময় একই গ্রামের কাজল নামে এক লোক তার মেয়েকে দেখলেই উত্যক্ত ও হুমকি দিত। তিনি আরও বলেন, কাজল তার মেয়েকে দেখলেই মেরে ফেলবে বলতো। এছাড়াও কয়েকজন এমন হুমকি দিত। তিনি ও তার স্ত্রী কাজলকেই দায়ী করছেন। একই কথা পুলিশের কাছেও বলেন তারা।

এবিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল মতিন তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তিনি ধর্ষণ চেষ্ঠার বিষয়ে কিছু করেননি বা হুমকি-ধামকি দেননি। তিনি এ ঘটনার বিষয়ে বলেন, তিনি ঘটনাস্থলে এসে এসআই হারুনকে খবর দিলে পুলিশ এসে ছুরতহাল তৈরী করে লাশ নিয়ে গেছে।

কুলাউড়া থানার সহকারী পুলিশ পরিদর্শক(এসআই) হারুন উর রশিদ জানান, ছুরতহাল রিপোর্টে গায়ে কোনও আঘাতের চিহৃ পাওয়া যায়নি। তবে মেয়েটি গলায় ফাঁস লাগানো ছিল এবং উপুড় হয়ে থাকায় নাকে-মুখে রক্ত বেরিয়েছে। তিনি বলেন, এবিষয়ে অনেক সন্ধেহ দেখা দিয়েছে, নিজ পরিবারের লোকজন জড়িত থাকতে পারে। তবে তিনি বলেন, ময়না তদন্তের পর প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে। এ বিষয়ে আইনি প্রক্রিয়া অব্যাহত আছে বলেও জানান তিনি।

পর্ব-১