ঢাকা ১১:৫০ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ডিএসই তে সরকারের রাজস্ব বেড়েছে দ্বিগুণ

জুলাই মাসের তুলনায় আগস্ট মাসে দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) থেকে সরকারের রাজস্ব বেড়েছে দ্বিগুণ। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। বাজার সংশিষ্টরা বলছেন, চলতি বছরের জুলাই মাসের তুলনায় আগস্ট মাসে সূচকের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতায় পুঁজিবাজারে লেনদেন হয়েছে। সূচক বাড়ায় লেনদেনও বেড়েছে প্রায় দ্বিগুণ। এ কারণে কর বাবদ সরকারের রাজস্ব বেড়েছে।

ডিএসইর তথ্য মতে, চলতি বছরের আগস্ট মাসে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ২৪ হাজার ৩৫৫ কোটি ৬ লাখ ১২ হাজার ৯৬০ টাকা। সেখান থেকে কর বাবদ সরকার রাজস্ব পেয়েছে ৩২ কোটি ৮৬ লাখ ৮৫ হাজার ৮৫৯ টাকা।

এর আগের মাস জুলাইয়ে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছিল ১২ হাজার ২৮৪ কোটি ১২ লাখ ৩৩ হাজার ২১২ টাকার। সে সময় সরকার রাজস্ব পেয়েছিল ১৪ কোটি ৩৫ লাখ ৫১ হাজার ২২৯ টাকা। অর্থাৎ জুলাই মাসের চেয়ে আগস্ট মাসে সরকার ১৮ কোটি ৫১ লাখ ৩৪ হাজার ৬৩০ টাকা বেশি রাজস্ব পেয়েছে।

চলতি বছরের জুলাই মাসের তুলনায় রাজস্ব বাড়লেও গত বছর অর্থাৎ ২০২১ সালের আগস্ট মাসের তুলনায় ২০২২ সালের আগস্ট মাসে সরকারের রাজস্ব আয় কমেছে ১৭ কোটি ৩৪ লাখ ৯৯ হাজার ১৮৮ টাকা। ২০২১ সালের আগস্ট মাসে সরকারের রাজস্ব আয় হয়েছিল ৫০ কোটি ২১ লাখ ৮৫ হাজার ৪৭ টাকা।

এ বিষয়ে ডিএসইর পরিচালক শাকিল রিজভী দৈনিক আমাদের মাতৃভূমিকে বলেন, পুঁজিবাজার চাঙা থাকলে লেনদেন বেশি হবে। আর লেনদেন বেশি হলে সরকার রাজস্ব বেশি পাবে। সুতরাং সরকারে উচিত পুঁজিবাজারকে চাঙা রাখা। এতে বিনিয়োগকারী সরকার উভয়ই লাভবান হবে।

নতুন কোনো ইস্যু তৈরি না হলে পুঁজিবাজার ভালো থাকবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, দরপতন ঠেকাতে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) শেয়ারের দাম কমার ক্ষেত্রে ফ্লোর প্রাইস নির্ধারণ করেছে। এছাড়াও পুঁজিবাজারে ব্যাংকের বিনিয়োগ সীমা (এক্সপোজার লিমিট) গণনার পদ্ধতি ‘ক্রয়মূল্যে’ করা হয়েছে। এই দুই কারণে ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে পুঁজিবাজার। এই ধারা অব্যাহত থাকলে আগস্ট মাসের তুলনায় সেপ্টেম্বর মাসে সরকার আরও বেশি রাজস্ব পাবে।

ডিএসইর তথ্য মতে, গত আগস্টে সরকারের পাওয়া রাজস্বের মধ্যে সাধারণ বিনিয়োগকারী অর্থাৎ ব্রোকার হাউজের লেনদেন থেকে ২৬ কোটি ১৫ লাখ ৯১ হাজার ৭৭১ টাকা, আর উদ্যোক্তা পরিচালকদের শেয়ার বিক্রি থেকে রাজস্ব আদায় হয়েছে ৬ কোটি ৭০ লাখ ৯৪ হাজার ৮৮ টাকা।

Tag :

আপনার মতামত লিখুন

Your email address will not be published.

আপনার ইমেইল ও অন্যান্য তথ্য সঞ্চয় করে রাখুন

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

ডিএসই তে সরকারের রাজস্ব বেড়েছে দ্বিগুণ

আপডেট সময় ০৭:৪৬:২৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

জুলাই মাসের তুলনায় আগস্ট মাসে দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) থেকে সরকারের রাজস্ব বেড়েছে দ্বিগুণ। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। বাজার সংশিষ্টরা বলছেন, চলতি বছরের জুলাই মাসের তুলনায় আগস্ট মাসে সূচকের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতায় পুঁজিবাজারে লেনদেন হয়েছে। সূচক বাড়ায় লেনদেনও বেড়েছে প্রায় দ্বিগুণ। এ কারণে কর বাবদ সরকারের রাজস্ব বেড়েছে।

ডিএসইর তথ্য মতে, চলতি বছরের আগস্ট মাসে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ২৪ হাজার ৩৫৫ কোটি ৬ লাখ ১২ হাজার ৯৬০ টাকা। সেখান থেকে কর বাবদ সরকার রাজস্ব পেয়েছে ৩২ কোটি ৮৬ লাখ ৮৫ হাজার ৮৫৯ টাকা।

এর আগের মাস জুলাইয়ে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছিল ১২ হাজার ২৮৪ কোটি ১২ লাখ ৩৩ হাজার ২১২ টাকার। সে সময় সরকার রাজস্ব পেয়েছিল ১৪ কোটি ৩৫ লাখ ৫১ হাজার ২২৯ টাকা। অর্থাৎ জুলাই মাসের চেয়ে আগস্ট মাসে সরকার ১৮ কোটি ৫১ লাখ ৩৪ হাজার ৬৩০ টাকা বেশি রাজস্ব পেয়েছে।

চলতি বছরের জুলাই মাসের তুলনায় রাজস্ব বাড়লেও গত বছর অর্থাৎ ২০২১ সালের আগস্ট মাসের তুলনায় ২০২২ সালের আগস্ট মাসে সরকারের রাজস্ব আয় কমেছে ১৭ কোটি ৩৪ লাখ ৯৯ হাজার ১৮৮ টাকা। ২০২১ সালের আগস্ট মাসে সরকারের রাজস্ব আয় হয়েছিল ৫০ কোটি ২১ লাখ ৮৫ হাজার ৪৭ টাকা।

এ বিষয়ে ডিএসইর পরিচালক শাকিল রিজভী দৈনিক আমাদের মাতৃভূমিকে বলেন, পুঁজিবাজার চাঙা থাকলে লেনদেন বেশি হবে। আর লেনদেন বেশি হলে সরকার রাজস্ব বেশি পাবে। সুতরাং সরকারে উচিত পুঁজিবাজারকে চাঙা রাখা। এতে বিনিয়োগকারী সরকার উভয়ই লাভবান হবে।

নতুন কোনো ইস্যু তৈরি না হলে পুঁজিবাজার ভালো থাকবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, দরপতন ঠেকাতে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) শেয়ারের দাম কমার ক্ষেত্রে ফ্লোর প্রাইস নির্ধারণ করেছে। এছাড়াও পুঁজিবাজারে ব্যাংকের বিনিয়োগ সীমা (এক্সপোজার লিমিট) গণনার পদ্ধতি ‘ক্রয়মূল্যে’ করা হয়েছে। এই দুই কারণে ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে পুঁজিবাজার। এই ধারা অব্যাহত থাকলে আগস্ট মাসের তুলনায় সেপ্টেম্বর মাসে সরকার আরও বেশি রাজস্ব পাবে।

ডিএসইর তথ্য মতে, গত আগস্টে সরকারের পাওয়া রাজস্বের মধ্যে সাধারণ বিনিয়োগকারী অর্থাৎ ব্রোকার হাউজের লেনদেন থেকে ২৬ কোটি ১৫ লাখ ৯১ হাজার ৭৭১ টাকা, আর উদ্যোক্তা পরিচালকদের শেয়ার বিক্রি থেকে রাজস্ব আদায় হয়েছে ৬ কোটি ৭০ লাখ ৯৪ হাজার ৮৮ টাকা।